২৮ জানুয়ারি ২০২৩, শনিবার

আবারও রোনালদোতেই ‘সমাধান’ খুঁজে পেলো ইউনাইটেড

- Advertisement -

কিছুদিন হলো ব্যাপক কানাঘুষা চলছে, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের বর্তমানে যে অধারাবাহিক বা খারাপ সময় যাচ্ছে- এর কারণ নাকি খোদ ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো? বেশকিছু বিশেষজ্ঞ ও গণমাধ্যমের দাবি ছিলো, সমস্যা ওলে গুনার শুলসার বা ইউনাইটেডের বাকি দলের নয়, সমস্যা বরং রোনালদো ইউনাইটেডে আসার পর থেকে দলের পুরো রণকৌশল ‘রোনালদো-কেন্দ্রিক’ হয়ে যাওয়া ও বাকিরা নিজেদের সামর্থ্যের সর্বোচ্চটুকু দিয়ে পারফর্ম না করা। (এই ক্ষেত্রেও রোনালদো ‘সমস্যা’ কি করে হলেন, সেটি নিয়ে অবশ্য প্রশ্ন তোলাই যায়!) অনেকে তাঁর বয়স, স্ট্রাইকার রোলে খেলা, ওয়ার্করেটের অভাব নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন।

সে যাই হোক, চ্যাম্পিয়নস লিগের আরো একটি রাতে ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো অবশ্য আরো একবার সমালোচকদের মুখে ছাই দিলেন। প্রমাণ করলেন, ইউনাইটেডের সমস্যা যাই হোক, তিনিই ইউনাইটেডের একমাত্র ‘সমাধান’। বয়স, খেলার রোল কোনকিছুই যে সত্যকে টলাতে পারবে না। রোনালদোর জোড়া গোলে ইতালিয়ান ক্লাব আতালান্তার মাঠে দুইদুইবার পিছিয়ে পড়েও  ২-২ ড্র নিয়ে মাঠ ছেড়েছে রেড ডেভিলরা।

ম্যাচের ১৮ সেকেন্ডেই গোলের প্রথম সুযোগ পেয়েছিলেন রোনালদো। ৫ মিনিটে স্কট ম্যাকটমিনের শট বারে না লাগলে হয়তো প্রথম গোল ইউনাইটেডই দিতো। তবে ১২ মিনিটে ডুভান জাপাতার অ্যাসিস্টে জোসিপ ইলিচিচ গোল করে এগিয়ে দেন আতালান্তাকে। গোল খেয়ে পিছিয়ে পড়ার পর ইউনাইটেডের মরার ওপর খাঁড়ার ঘা হয়ে আসে অভিজ্ঞ ডিফেন্ডার রাফায়েল ভারানের ইনজুরি।

প্রথমার্ধ শেষের বাঁশি বাজার কিছুক্ষণ আগে রোনালদোর গোলে সমতা বিধান করে ইউনাইটেড। গোলের সূচনা রোনালদোই করেছিলেন। রোনালদো থেকে মেসন গ্রিনউড, গ্রিনউড থেকে ব্রুনো ফের্নান্দেজ, ফের্নান্দেজের নিজে গোলের জন্য না চেষ্টা করে ব্যাকপাস করে বল আবার রোনালদোকে দেওয়া এবং রোনালদোর দুর্দান্ত ফিনিশিং।

তবে দ্বিতীয়ার্ধে ৫৬ মিনিটে আবারো এগিয়ে যায় আতালান্তা। হ্যারি ম্যাগুয়েরের ভুলের সুযোগ নিয়ে এবার গোল করেন আগের গোলের অ্যাসিস্টদাতা জাপাতাই। ২-১ গোলে পিছিয়ে যাওয়ার পর বোধহহ্য স্নায়ুচাপ জেঁকে বসেছিলো ইউনাইটেড খেলোয়াড়দের। এলোমেলো পাসিং, উদ্দেশ্যহীন ক্রসিং, কোনমতে আরো দুয়েকটি গোল খেতে খেতে রক্ষা পাওয়া- মনে হচ্ছিলো এই ম্যাচে ইউনাইটেডের হার সময়ের ব্যাপার মাত্র।

তবে বরাবরের মতোই রোনালদো প্রমাণ করলেন কেন তিনি যে ম্যাচে আছেন, শেষ বাঁশি বাজার আগ পর্যন্ত সেটির ভাগ্য নির্ধারণ করা সম্ভব নয়। দ্বিতীয়ার্ধের অতিরিক্ত সময়ে রোনালদোর পা থেকে এলো আরো একটি চমৎকার গোল। ডানপ্রান্ত থেকে ডি বক্সের ধার ঘেঁষে ড্রিবল করে আতালান্তার কয়েকজন ডিফেন্ডারকে কাটিয়ে এবারও গোলের সুযোগটি রোনালদোই সৃষ্টি করেন, গ্রিনউডের সাথে ওয়ান টু পাসের পর নিজেই ফিনিশ করেন।

এই জোড়া গোলে চ্যাম্পিয়নস লিগে রোনালদোর গোলসংখ্যা পৌঁছে গেলো ১৩৯ এ। ক্যারিয়ার গোল হলো ৭৯৮।

এই ড্রতে গ্রুপ ‘এফ’ এর শীর্ষস্থান ধরে রেখেছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড।

- Advertisement -spot_img
- Advertisement -

সর্বশেষ

- Advertisement -
- Advertisement -spot_img