NCC Bank
- Advertisement -NCC Bank
১৮ আগস্ট ২০২২, বৃহস্পতিবার

আলাদা ম্যাচে রাতে মাঠে নামছে রিয়াল মাদ্রিদ ও ম্যান সিটি

- Advertisement -

দুটো ক্লাবের বয়সের পার্থক্য মাত্র পাঁচ বছর। তবে শিরোপা, খ্যাতি কিংবা দর্শকপ্রিয়তা; আটালান্টার চেয়ে অনেক, অনেক ব্যবধানে এগিয়ে রিয়াল মাদ্রিদ। রিয়ালের নামটা ইউয়েফার এই ট্রফিতে যতবার লেখা হয়েছে, তার ধারে কাছেও নেই কোন দল। ম্যাচ শুরু হবে রাত দু’টোয়

চ্যাম্পিয়নস লিগে নিজেদের শততম ম্যাচটা স্মরণীয় করে রাখতে জিনেদিন জিদানের দল কি প্রস্তুত?  লা লিগার শেষ ম্যাচের পারফরম্যান্স বিবেচনা করে রিয়াল ইউথ টিমের ছয়জন খেলোয়াড়কে রাখা হচ্ছে স্কোয়াডে। দিয়েগো আলতুবে, ভিক্তর গার্সিয়া, মিগুয়েল গুতিরেজ, আন্তোনিও ব্লাংকো, হুগো দুরো, সের্হিও আরিবাস নামগুলো খুবই অপরিচিত। কিন্তু এদের মধ্য থেকেই যে কেউ নজর কাড়তে পারেন রাতের ম্যাচে। অ্যাটাকের দিক দিয়ে শক্তিশালী আটালান্টাকে আটকাতে রিয়ালের শক্তিশালী মিডফিল্ডে রাখতে হবে বড় ভূমিকা। টনি ক্রুস ক্যাসেমিরো এবং মদ্রিচ মিলে যদি মাঝ মাঠ নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন, তাহলে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণও অনেকটাই থাকবে রিয়ালের। যদিও সব কিছুর কেন্দ্রবিন্দুতে থাকবে জিনেদিন জিদানের পরিকল্পনা।

এই ম্যাচকে ফাইনালের সাথে তুলনা করেছেন রিয়াল কোচ। শেষ এক দশক একচ্ছত্র আধিপত্য বিস্তার করে থাকা মাদ্রিদিস্তাদের বিগত দুই বছর থেমে যেতে হয়েঅছে নক আউট পর্বে। শেষ ষোলোর আজকের মঞ্চ কি আশীর্বাদ? নাকি অভিসম্পাত?

অভিজ্ঞতা এবং আত্মবিশ্বাস, একটা আরেকটার সমানুপাতিক। ২০১৯ সালে ইতালির ‘দেবী’ খ্যাত এই আটালান্টা গ্রুপ স্টেজের ছয় ম্যাচের প্রথম চারটিতে হেরেও নকআউটে এসেছিল। এবারও কাহিনী কম হয় নি! লিভারপুলের সাথে বিশাল ব্যবধানে হেরে আবার পরের ম্যাচেই উলটো তাদের হারানো, গ্রুপের বাকি দুই দলের বিপক্ষে অপরাজিত থাকা, এসব কিছু দেখে বলে দেওয়া যায়, আটালান্টা: দ্যা আনপ্রেডিক্টেবল!

নকআউটের অপর ম্যাচে মনশেনগ্লাডবাখের বিপক্ষে নামবে স্কাই ব্লু ইংলিশ জায়ান্ট ম্যানচেস্টার সিটি। সব মিলে টানা ১৮ ম্যাচে পয়েন্ট কামানো সিটির উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগেও রেকর্ড খারাপনা। চলতি সিজনেও গ্রুপের ছয় ম্যাচের সবগুলোই অপরাজিত।

হেড টু হেড সমীকরণ বলছে, ম্যানসিটির দিকেই পাল্লা ভারী।  শতভাগ জয়, ড্র হয়েছে একটি ম্যাচ। কোচ পেপ গার্দিওলা তার দলকে প্রিমিয়ার লিগ, এফএ কাপ, লিগ কাপ জিতিয়ে এবার ইউয়েফার মাঠে নামার লক্ষ্যে প্রস্তুত করছেন। গ্রুপ স্টেজ পাড়ি দিতে বেশ বড় বড় স্কোরই তুলেছিল সিটিজেনরা। নাথান আকে ছাড়া সবাই ফিট আছেন আজকের ম্যাচের জন্য। মিডফিল্ডের তিনজন কান্ডারি এবং এই কম্পিটিশনে সিটির হয়ে আগের চার ম্যাচে গোল পাওয়া ফেরান তোরেস মিলে ঘুরিয়ে দিতেন পারেন এই ম্যাচ।

অন্যদিকে, সিটিকে ফেভারিট রেখে গ্লাডবাখকে ছোট করে দেখছেন? প্রথমবারের মতো শেষ ষোলোর ম্যাচ খেলতে যাচ্ছে এই দলটা। ছোট ছোট পাসে খেলা জার্মান এই ক্লাবটার মূল শক্তি তাদের তড়িৎ গতির স্ট্রাইকাররা। হোম ম্যাচে তাদের ফোকাস থাকবে গোল পাওয়া। তবে কাউন্টার অ্যাটাক ডিফেন্ড করার দিক দিয়ে নজর রাখতে হবে একটু বেশি।

বুন্দেসলিগায় তাদেরকে খুব একটা ভালো ফর্মে পাওয়া না গেলেও এবারের উয়েফায় তারা উঠেপড়ে লেগেছে। একই গ্রুপে থাকা শাখতার এবং সিরিআ টপার ইন্টার মিলানকে টপকে কোয়ার্টার ফাইনালের দৌড়ে এক কদম ফেলতে যাচ্ছে তারা আজকের ম্যাচে। একই সময় অর্থাৎ রাত ২টাতেই শুরু হবে এই ম্যাচটাও।

- Advertisement -spot_img
- Advertisement -

সর্বশেষ

- Advertisement -
- Advertisement -spot_img