১৯ জুন ২০২৪, বুধবার

আসলেই সেরা কেন উইলিয়ামসন!

- Advertisement -

২৩৮ রান। এক ডাবল সেঞ্চুরিতে কি নেই! বলা যায় রেকর্ডে রেকর্ডে মালা গাঁথলেন সময়ের সেরা টেস্ট ব্যাটসম্যান কেন উইলিয়ামসন। ক্যারিয়ারের চতুর্থ ডাবল সেঞ্চুরি, কিউইদের মধ্য দ্রুততম ৭ হাজার রান করা, স্বদেশী ব্রেন্ডন ম্যাককালামকে ছুঁয়ে ফেলা, আর কত রেকর্ড ওই একটা ডাবল সেঞ্চুরিতে।

ঠিক একমাস আগেই উইন্ডিজদের বিপক্ষে ডাবল সেঞ্চুরি করেছিলেন। আর পাকিস্তানের বিপক্ষেতো আরো আগ্রাসী। দুই টেস্টে একটা সেঞ্চুরি, একটা ডাবল সেঞ্চুরি। উইলিয়ামসনের সবশেষ চার ইনিংস ২৫১, ১২৯, ২১, ২৩৮। স্মিথ-কোহলি টপকে সেরা টেস্ট ব্যাটসম্যান হয়ে বছরের শুরুটা তাঁর। কেন তিনি সময়ের সেরা তার প্রমাণটাও দিলেন ক্রাইস্টচার্চ টেস্টে।

রেকর্ডময় এই ডাবল সেঞ্চুরি গড়তে তিনি ক্রিজে ছিলেন সাড়ে ৯ ঘন্টা। ২৩৮ রানে শেষ পর্যন্ত কিউই অধিনায়ককে থামান ফাহিম আশরাফ। নিউজিল্যান্ডের রান তখন ৫’শ ছাড়িয়ে যায়। নিউজিল্যান্ডের তৃতীয় ক্রিকেটার হিসেবে ৭ হাজার রানের ক্লাবে নাম উঠান টেস্ট সেরা ব্যাটসম্যান। শেষ পর্যন্ত ৬ উইকেটে ৬৫৯ রানে নিউজিল্যান্ড তাদের প্রথম ইনিংস ঘোষণা করে।

৩ উইকেটে ২৮৬ রান নিয়ে তৃতীয় দিনের খেলা শুরু করেন উইলিয়ামসন এবং নিকোলস। কয়েক দফা বৃষ্টির বাঁধাতেও থামেনি এই জুটির রানের গতি। মধ্যাহ্ন বিরতির পরই ম্যাজিকাল ফিগার ডাবল সেঞ্চুরি করে ফেলেন উইলিয়ামসন। ডাবল সেঞ্চুরি করতে খেলেন ৩২৭ বল। কিউই অধিনায়ককে যোগ্য সঙ্গ দেন নিকোলস। চতুর্থ উইকেটে তারা যোগ করেন ৩৫৯ রান। জুটিকে বিচ্ছিন্ন করেন মোহাম্মদ আব্বাস। নিকোলস আউট হন ১৫৭ রানে।

রানের ক্ষুধা তখনও ছিল উইলিয়ামসনের। ড্যারলি মিচেলের সঙ্গে শতরানের পার্টানারশিপ গড়েন। মিচেলও তুলেন ফেলেন ক্যারিয়ারের প্রথম সেঞ্চুরিটা। তাঁর শতরানের পরই ইনিংস ঘোষণা স্বাগতিকদের। শেষ পর্যন্ত মিচেল ১০২ রানে আর জেমিসন  ৩০ রানে অপরাজিত ছিলেন।

৩৬২ রানে পিছিয়ে থেকে পাকিস্তান দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিংয়ে নামে। কিন্তু বিনা উইকেটে শেষ করতে পারেনি দিনটা। শান মাসুদ শূন্যতেই বিদায় নেন। এখন পাকিস্তানের সামনে হিসেব পরিস্কার। এড়াতে হবে ইনিংস পরাজয়।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

পাকিস্তান ২৯৭ ও ৮/১ ( আজহার ৯৩, রিজওয়ান ৬১

নিউজিল্যান্ড ৬৫৯/৬, ডিক্লেয়ার্ড ( উইলিয়ামসন ২৩৮, নিকোলস ১৫৭, মিচেল ১০২*)

 

- Advertisement -spot_img
- Advertisement -

সর্বশেষ

- Advertisement -
- Advertisement -spot_img