NCC Bank
- Advertisement -NCC Bank
১৯ আগস্ট ২০২২, শুক্রবার

‘ইতিহাস’ গড়তে চান জামাল ভূঁইয়া

- Advertisement -

শেষবার সাফ শিরোপা জয়ের পেরিয়ে গেছে দেড়যুগ; শেষবার ফাইনালে ওঠার পেরিয়েছে ১৬ বছর। দুটিরই সুযোগ আবারো এসেছে বাংলাদেশ দলের সামনে। বুধবার নেপালের সাথে জিতলেই ২০০৫ সালের পর প্রথমবার সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ ফুটবলের ফাইনালে চলে যাবে বাংলাদেশ। অপর ম্যাচে একই সমীকরণ নিয়ে ভারত মুখোমুখি হচ্ছে মালদ্বীপের। দুটি ম্যাচের ফলাফলের কোন প্রভাব একে অপরের ওপর পড়ছে না বিধায় এই দুটি ম্যাচ বলা যায় অঘোষিত সেমিফাইনালই হয়ে গেছে।

মঙ্গলবার ম্যাচ পূর্ববর্তী সংবাদ সম্মেলনে জামাল ভূঁইয়া ও কোচ অস্কার ব্রুজনের কন্ঠে তাই ঝড়ল ১৬ বছরের ব্যর্থতার শেকল ভাঙ্গার প্রত্যয়।

“আমি অতীতের ব্যাপারে কথা বলতে পছন্দ করি না। আমাদের এখন যে দল আছে সেটি যেকোন বিচারেই এই মুহুর্তে বাংলাদেশের সেরা দল। এবং আমি বিশ্বাস করি আমরা আগামীকাল ইতিহাস গড়তে পারব, খেলোয়াড়রাও সেটি বিশ্বাস করে এবং তারা নিজেদের শতভাগ দিতে প্রস্তুত”- বলেছেন জামাল

সংবাদ সম্মেলনে জামাল ও অস্কার ব্রুজন

মালদ্বীপের বিপক্ষে ম্যাচের পর বিশ্রাম অনুশীলন মিলিয়ে পাঁচ দিনের গ্যাপের পর নেপালের বিপক্ষে খেলতে নামছে বাংলাদেশ। জিতলে ফাইনালে চলে যাবে এটা সত্য, কিন্তু নির্দিষ্ট করে বলতে গেলে ‘জয়’ ছাড়া অন্য কোন পথই বাংলাদেশের নেই। ড্র হলেই বাদ পড়বে বাংলাদেশ, ফাইনালে চলে যাবে নেপাল। এমনিতেই জমাট রক্ষণ ও প্রতিআক্রমণের কৌশলে খেলা নেপাল এই ম্যাচেও যে একই পন্থা অবলম্বন করবে তা ভালোই জানা আছে বাংলাদেশের কোচ অস্কার ব্রুজনের।

“নেপাল এমন দল নয় যারা আমাদের সাথে বলের দখলের জন্য লড়াই করবে। তারা খুবই সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনায় ফুটবল খেলে। তাদের কিছু দ্রুতগতির খেলোয়াড় রয়েছে যারা প্রতিআক্রমণে দক্ষ। কাজেই সেই অনুযায়ী আমাদের পরিকল্পনা সাজাতে হবে।”

আক্রমণের ধার বাড়াতে দুইজন স্ট্রাইকার খেলাবেন কিনা, এমন প্রশ্নের উত্তরে সকৌতুক ব্রুজন বলেছেন, “যদি দরকার হয় চারজন স্ট্রাইকার খেলাবো”।

কোচের কৌশল মাঠে কতোটা কাজে লাগাতে পারবে জামাল-তপুরা?

সে তো গেলো গোল করার ভাবনা। কিন্তু আগের ম্যাচেই মালদ্বীপের সাথে দুটি গোল হজম করেছে বাংলাদেশ। এই ম্যাচে গোল না খাওয়ার দিকে কতোটা দৃষ্টি বাংলাদেশের?

“যে কৌশলে বর্তমানে বাংলাদেশ খেলছে তাতে আমরা সরাসরি গোল খাচ্ছি খুব কম। আমরা হাই ডিফেন্স লাইন মেইনটেইন করি এবং প্রতিপক্ষের পাসিং লেইন গুলো বন্ধ করে দেই। আপনি যদি দেখেন মালদ্বীপের বিরুদ্ধে দুটি গোলই আমরা খেয়েছি সেটপিস থেকে। কাজেই আমার মনে হয় নেপালের বিপক্ষেও আমাদের কৌশল কাজ করবে”- জবাবে বলেছেন ব্রুজন।

বাংলাদেশের প্রথম তিন ম্যাচের মতো আজও প্রবাসী বাংলাদেশীদের মধ্যে মাঠে বসে খেলা দেখার আগ্রহ অনেক দেখা গেছে। গতকাল ও আজ সকাল থেকেই দীর্ঘ লাইন এর মাধ্যমে তারা মালদ্বীপ ন্যাশনাল স্টেডিয়াম থেকে টিকেট সংগ্রহ করছে। তারা বাংলাদেশ জাতীয় দলকে মাঠে বসে উৎসাহ দিয়ে জয়ের আশা ব্যক্ত করেছে।

 

- Advertisement -spot_img
- Advertisement -

সর্বশেষ

- Advertisement -
- Advertisement -spot_img