২৩ এপ্রিল ২০২৪, মঙ্গলবার

‘এল ক্লাসিকো’ জিতে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে রিয়াল মাদ্রিদ

- Advertisement -

বার্সেলোনা-রিয়াল মাদ্রিদ মুখোমুখি হওয়া মানে শুধু একটি ফুটবল ম্যাচ নয়, এটাতে থাকে আভিজাত্যের অহংকার, নিজস্ব গন্ডি ছাড়িয়ে এই ম্যাচের উত্তাপ আছড়ে পড়ে পৃথিবীর আনাচে-কানাচে। ধ্রুপদী এই লড়াইয়ে দুই ক্লাবের ফুটবলাররা সবুজ গালিচায় আঁকেন ফুটবল সৌন্দ্যর্য। শনিবারের রাতটায় স্পেনের আলফ্রেদো দি স্তেফানো স্টেডিয়ামে তেমনই কিছু ছবি আঁকা হয়েছে। যেখানে মেরুন-নীল রঙের জার্সিধারিরা ধূসর আর সাদারা উজ্জল। স্প্যানিশ এল ক্লাসিকোতে রিয়াল মাদ্রিদ জয় পেয়েছে ২-১ ব্যবধানে। বার্সেলোনার টানা ১৯ ম্যাচ অপরাজিত থাকার রেকর্ডকে চূর্ণ করেছে জিদানের শিষ্যরা। সেই সাথে আতলেতিকো মাদ্রিদকে সরিয়ে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষস্থানটাও দখলে নিয়েছে লস ব্লাঙ্কোসরা।

ম্যাচে মেসির হতাশার দিনে করিম বেনজামা আরেকবার উজ্জল। নিজেকে প্রমাণ করেছেন ১৩ মিনিটে। ডানদিক দিকে বার্সা বক্সে নিচু করে ক্রস দেন রিয়াল রাইটব্যাক লুকাস ভাসকেজ। দুর্দান্ত ব্যাক ফ্লিকে বলটা জালে পাঠিয়ে দেন বেনজেমা।টানা সাত ম্যাচে জালের দেখা পেলেন ফরাসী তারকা, গোল করেছেন ৯টি। আসরে তার মোট গোল ১৯টি।

প্রথমার্ধে বল দখলেও এগিয়ে থেকেও ছন্দহীন খেলায় পিছিয়ে রেখেছিলো বার্সাকে। ৮টি শট নিয়ে মাত্র তিনটি লক্ষ্যে রাখতে পেরেছিলো মেসিরা। গোল খেয়ে পিছিয়ে পড়া বার্সেলোনাকে লড়তে হয়েছে মূষলধারে বৃষ্টির সাথেও।

এমন বাস্তবতায় উল্টো আরো এক গোল হজম করতে হয় কাতালানদের। বক্সের বাইরে থেকে ফ্রি-কিক নেন টনি ক্রুস। তার শট দুই ডিফেন্ডারের গায়ে লেগে সরাসরি বার্সার জালে। কয়েক মিনিটের ব্যবধানে স্কোরলাইন ৩-০ হয়ে যেতে পারতো। ভিনিসিয়ুসের দারুণ পাস থেকে ভালভেরদের জোরালো শট দূরের পোস্টে বাধা পায়। ফিরতি বলে ভাসকেসের শট ঝাঁপিয়ে ঠেকান বার্সা গোলরক্ষক মার্ক-আন্দ্রে টের স্টেগেন।

বিরতির ঠিক আগে মেসি স্পট লাইটে। কিন্তু লক্ষ্যভেদ করতে ব্যর্থ হন। তার জোড়ালো শট ঝাপিয়ে ঠেকিয়ে দেন রিয়াল গোলরক্ষক কোর্তোয়া।

বিরতি থেকে ফিরে মাঠের ফর্ম্যাশন পাল্টান বার্সা কোচ রোনাল্ড কোম্যান। ৪-৩-৩ থেকে বদলে ফেলে ৩-৫-২ ছঁকে পরিকল্পনা সাজান।

ফলও আসে কিছুক্ষণের মধ্যেই। ৬০ মিনিটে গোলের দেখা পায় তারা। বাঁ দিক থেকে আলবার ক্রস দুই পায়ের ফাঁক দিয়ে ছেড়ে দেন বদলি নামা গ্রিজমান। আর ফাঁকায় বল পেয়ে ১০ গজ দূর থেকে ব্যবধান কমান প্রথম ক্লাসিকো খেলতে নামা তরুণ ডিফেন্ডার মিঙ্গুয়েজা।

দু’দলই এরপর কিছু সুযোগ পেয়েছে। আক্রমণ পাল্টা আক্রমণে জমে উঠে ম্যাচ। কিন্তু কিছু নাটকীয়তা হয়েছে নির্ধারিত সময়ের শেষ মিনিটে।  পরপর দুই মিনিটে দুই হলুদ কার্ড দেখে ৯০ মিনিটে লাল কার্ড দেখেন রিয়ালের মিডফিল্ডার কাসেমিরো।

যোগ করা সময়ের একেবারে শেষ মুহূর্তে সমতায় ফেরার দারুণ সুযোগ নষ্ট হয় বার্সেলোনার। ভাগ্য সহায় হয়নি; বদলি নামা তরুণ মিডফিল্ডার ইলাইশ মোরিবার শট ক্রসবারে বাধা পায়। শেষ পর্যন্ত রিয়াল মাদ্রিদের জয়ের আনন্দ। ১৯৭৮ সালের পর টানা তিন ক্লাসিকো জিতার রেকর্ড গড়লো রিয়াল মাদ্রিদ।

রিয়ালের জয়ে তিনে নেমে গেল বার্সেলোনা, ৩০ ম্যাচে তাদের পয়েন্ট ৬৫। ১ পয়েন্ট বেশি নিয়ে শীর্ষে শিরোপাধারীরা। এক ম্যাচ কম খেলা আতলেতিকো মাদ্রিদের পয়েন্টও রিয়ালের সমান ৬৬।

- Advertisement -spot_img
- Advertisement -

সর্বশেষ

- Advertisement -
- Advertisement -spot_img