২৮ জানুয়ারি ২০২৩, শনিবার

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে ‘বিদায়’ জানালেন জেমস প্যাটিনসন!

- Advertisement -

অভিষেক সিরিজেই দুই টেস্টে ১৪ উইকেট নিয়ে হইচই ফেলে দিয়েছিলেন। পরের সিরিজের প্রথম  ম্যাচেই ভারতের বিপক্ষে ম্যান অব দ্য ম্যাচ। দুই টেস্টে নেন ১১ উইকেট। এগুলো সেই ২০১১ সালের কথা।

এমন দুর্দান্ত শুরুর পর আগামী এক দশকে যেখানে পৌঁছানোর কথা, অস্ট্রেলিয়ান ফাস্ট বোলার জেমস প্যাটিনসনের ক্যারিয়ার তাঁর ধারে কাছেও পৌঁছায়নি। খেলেছেন সাকুল্যে ২১টি টেস্ট, ১৫টি ওয়ানডে ও ৪টি টি-টোয়েন্টি। ফাস্ট বোলারদের নিত্যসঙ্গী ‘ইনজুরি’; তবে জেমস প্যাটিনসনকে যেন ইনজুরি একটু বেশিই অত্যাচার করেছে। বারবার দলে ফিরেছেন, পারফর্ম করেছেন, কিন্তু বারবার দলের বাইরেও ছিটকে গেছেন বিভিন্ন ইনজুরির কারণে। তাঁর জায়গায় স্টার্ক, কামিন্স, হ্যাজলউডরা দলে এসেছেন, পারফর্ম করে দলে জায়গা পাকা করে নিয়েছেন, তিনি হয়ে থেকেছেন ব্রাত্য। শেষ কয়েকটি টেস্ট সিরিজে নিয়মিত দলের সাথে থেকেও এদের টপকে একাদশে জায়গা করে নিতে পারেননি।

অবশেষে জেমস প্যাটিনসন হয়তো বুঝতে পেরেছেন, অনেক হয়েছে, এবার ক্ষান্ত দেওয়া উচিত! হাঁটুর চোটটাও তো ভোগাচ্ছে বেশকিছুদিন হলো। তাইতো ২০২১-২২ অ্যাশেজের আগেই টেস্ট ক্রিকেট থেকে অবসর নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন ৩১ বছর বয়সী এই পেসার। ২০২০ সালে করোনা মহামারীর আগে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সিডনি টেস্টটিই হয়ে থাকলো তাঁর খেলা সর্বশেষ টেস্ট। সর্বশেষ ওয়ানডে খেলেছেন আরো ৫ বছর আগে, টি-টোয়েন্টি আরো ৮ বছর আগে।

এই অ্যাশেজে অস্ট্রেলিয়া দলে তাঁর থাকাটা প্রায় নিশ্চিতই ছিল। ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার অফিশিয়াল ওয়েবসাইটকে গতমাসেই প্যাটিনসন বলেছেন, তিনি খেলতে চেয়েছিলেন অ্যাশেজে। তবে মনে মনে স্থির করে ফেলেছিলেন অবসর নেবেন সিরিজের পরই। প্যাটিনসনের ভাষ্যমতে এতো শারীরিক মানসিক চাপ নিয়ে ক্রিকেট খেলার বয়স তাঁর শেষ হয়ে গেছে।

“সত্যি বলতে এই বছরটিই টেস্টে আমার শেষ বছর। এই অ্যাশেজটা খেলার চেষ্টা আমি করবো এবং দেখবো কি হয়। সমস্যা হচ্ছে বয়স বাড়ার সাথে সাথে আপনি ক্রিকেট উপভোগও করতে চান। আর অস্ট্রেলিয়ার হয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলার প্রতি আপনার যত বেশি মোহ থাকবে তত সেই উপভোগের জায়গাটা আপনি হারিয়ে ফেলবেন।”

Image

তবে অ্যাশেজের আগেই বুটজোড়া তুলে রাখার সিদ্ধান্ত কেন? হয়তো হাঁটুর চোটটা যে তাঁকে এই এবারও চূড়ান্ত একাদশ থেকে দূরে রাখবে তাও নাকি তিনি বুঝতে পেরেছিলেন ভালোভাবেই।

২১ টেস্টে ২৬.৩৩ গড়ে ৮১ উইকেট নিয়েছেন প্যাটিনসন। ৫ উইকেট নিয়েছেন চারবার।

তাঁর অবর্তমানে স্টার্ক, কামিন্স, হ্যাজলউডের পাশাপাশি চতুর্থ পেসার হিসেবে অ্যাশেজ দলে সুযোগ পেতে পারেন ঝাই রিচার্ডসন, মাইকেল নেসার বা শন অ্যাবট।

 

 

- Advertisement -spot_img
- Advertisement -

সর্বশেষ

- Advertisement -
- Advertisement -spot_img