৬ অক্টোবর ২০২২, বৃহস্পতিবার

ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের শিরোপা উঠছে কার হাতে?

- Advertisement -

ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ ২০১৯-২০ অপেক্ষা করছে জমজমাট সমাপ্তি নিয়ে। ১৫ রাউন্ড খেলা শেষে আবাহনী লিমিটেড ও প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাবের পয়েন্ট সমান ২২। লিগের শেষদিনে মুখোমুখি হচ্ছে শিরোপা প্রত্যাশী এই দুইদল। দুইদলের মধ্যে যে জিতবে, বঙ্গবন্ধু ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ টি২০র শিরোপা উঠবে তারই হাতে। অনাগত এই ম্যাচের গুরুত্ব বিবেবচনা করে সিসিডিএম তাই লিগের শেষ দিনের ফিক্সচারে এনেছে পরিবর্তণ। ২৬ জুন শনিবার সকালে এই ম্যাচ হওয়ার কথা থাকলেও পরিবর্তিত ফিক্সচারে আবাহনী ও প্রাইম ব্যংক মিরপুরে মাঠে নামবে ২৬ জুন দুপুর দুইটায়।

ছবিঃবিসিবি
ছবিঃবিসিবি

আবাহনী ও প্রাইম ব্যাংকের এবারের আসরের পথচলা হয়েছে অনেকটা একই গতির। দুদলই জিতেছে ১১টা করে ম্যাচ। দুই দলকে হারানো দলেও রয়েছে অবিশ্বাস্য ধরনের মিল। আবাহনী হেরেছে প্রাইম ধলেশ্বর, মোহামেডান, শেখ জামাল ও খেলাঘর সমাজ কল্যান সমিতির সাথে। প্রাইম ব্যাংকেরও হার, প্রাইম ধলেশ্বর, মোহামেডান, শেখ জামাল ও আবাহনীর সাথে। তবে, আবাহনীর চেয়ে পয়েন্ট টেবিলে এগিয়ে থেকেও শিরোপার চেয়ে হাতছোঁয়া দুরত্বে পা ফসকেছে ব্যাংকের। আবাহনী ১১ ম্যাচে ১৬ পয়েন্ট নিয়ে সুপারলিগ শুরু করলেও প্রাইম ব্যাংক সুপারলিগ শুরু করেছিল ৯ জয়ে ১৮ পয়েন্ট নিয়ে। কিন্তু সুপারলিগে আবাহনী যেখানে চার ম্যাচে হেরেছে মাত্র একটি সেখানে প্রাইম ব্যাংকের হার দুটিতে। শিরোপা জেতার সবচেয়ে বড় সুযোগ ব্যাংক হাতছাড়া করে বৃহস্পতিবারের ম্যাচে। দুপুরে শেখ জামালের কাছে হেরে আবাহনী যখন শিরোপা রেসে খাদের কিনারায়, প্রাইম ধলেশ্বরের সাথে হেরে প্রাইম ব্যংক নিজেই যেনো আবাহনীর হাত ধরে টেনে তাদের শিরোপা রেসে নিয়ে এসেছে।

ছবিঃ ইন্টারনেট
ছবিঃ ইন্টারনেট

গুরুত্বপূর্ন এই ম্যাচের আগে অবশ্য দুইদলই তাদের নিজেদের দলের সবচেয়ে বড় দুজন তারকাকে পাবেনা। ইনজুরিতে লিগ থেকে ছিটকে গেছেন ব্যাংকের তামিম ইকবাল ও আবাহনীর মুশফিকুর রহিম। তবে কোন দল তাদের বেশি মিস করবে তা বলা মুশকিল। তামিম মুশিকে ছাড়া দুই দলেরই জয়ের হার ৫০শতাংশ। তামিমকে ছাড়া ৪ ম্যাচের দুইটি জিতেছে প্রাইম ব্যংক, মুশফিককে ছাড়া আবাহনীর জয় ১ টি আর হার ১টি।

ছবি: বিসিবি
ছবি: বিসিবি

আবাহনী দলের শক্তিমত্তা বিবেচনা করলে ফাইনালের আগে খাতা কলমে তাদেরই এগিয়ে রাখা যায়, তবে ফাইনালের চাপ সামলানো কঠিন হতে পারে তুলনামূলক তরুণ এই দলের। ৩ পেসার এবং দুই স্পিনার নিয়ে সাজানো আবাহনী দলে ফাঁকফোঁকর খোজা খুব একটা সহজ কাজ নয়। টি২০র জন্য আদর্শ আবাহনী দলে একাধিক অলরাউন্ডারও রয়েছে। তবে, ডেথ ওভারে ব্যাটসম্যানদের রান তোলায় কখনো কখনো ভুগতে হয়েছে আকাশি-নীলদের। সেই চিন্তায় ফাইনালে আবারও ৪-৫ নম্বরে ব্যাট করতে দেখা যেতে পারে ওপেনার নাঈম শেখকে। শেষ ম্যাচের একাদশ থেকে বাদ পড়তে পারেন লেগস্পিনার আমিনুল ইসলাম বিপ্লবও। সর্বশেষ ২ ম্যাচ মিলিয়ে বিপ্লব করেছেন ৪ ওভার আর পেয়েছেন ১টা উইকেট। ফাইনালের চাপ বিবেচনায় এবং প্রাইম ব্যাংকের ডানহাতি ব্যাটসম্যানদের কথা মাথায় রেখে দলে ফেরানো হতে পারে অভিজ্ঞ স্পিনার তাইজুল ইসলামকে।

ছবিঃ ইন্টারনেট
ছবিঃ ইন্টারনেট

প্রাইম ব্যাংকের দল বিবেচনা করলে খালি চোখেই বলা যায় তাদের প্রধান শক্তির যায়গা বোলিং। জাতীয় দলের স্কোয়াডে থাকা ৩ পেসার নিয়ে গঠিত বোলিং লাইনাপ যেকোনো দলের জন্যই ত্রাস যে সৃষ্টি করবে তাতে সন্দেহের যায়গা খুব কম। তবে, বোলিংয়ের ঠিক বিপরীত তাদের ব্যাটিং। শেষ দুই ম্যাচেই ৫১ ও ১০১ রানে ৫ উইকেট হারিয়েছিল প্রাইম ব্যাংক। প্রাইম ধলেশ্বরের সাথে ২৫ রানে শেষ ৫ উইকেট হারানোও ভালো কিছুর ইঙ্গিত দেয়না। ৩ পেসারের সাথে অলক কাপালি, নাইম হাসান আর নাহিদুল ইসলামদের নিয়ে গড়া বোলিং অ্যাটাকে তেমন কোনো পরিবর্তন আসার সম্ভাবনা নেই, ব্যাটিং-অর্ডারে পরিবর্তন আসলেও দলের নতুন কারও অন্তর্ভুক্তির সম্ভাবনা অনেক কম।

ছবিঃ বিসিবি
ছবিঃ বিসিবি

ফাইনাল ম্যাচে আবাহনীর বড় রান পেতে জ্বলে উঠতে হবে ১৫ ম্যাচে ৩৭৫ রান করে তাদের সর্বোচ্চ রান স্কোরার নাঈম শেখকে, ১৫ ম্যাচে ৩৫২ রান করা মুনিম শাহরিয়ারও আবাহনীর বড় ভরসা। শুরুতে লিটন দাশ আর শেষটা করতে হবে মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতকে। ব্যাটিংয়ে প্রাইম ব্যাংকের মূল দায়ীত্ব নিতে হবে আনামুল হক বিজয়, রনি তালুকদার আর মোহাম্মদ মিঠুনের; লোয়ার অর্ডারে নাহিদুল ইসলামের ব্যটিংও হুমকি হতে পারে আবাহনীর জন্য।

ছবিঃ ইন্টারনেট
ছবিঃ ইন্টারনেট

প্রাইম ব্যাংকের পেসত্রয়ী মুস্তাফিজ, শরিফুল আর রুবেল মিলে নিয়েছেন মোট ৫২ উইকেট; আর আবাহনীর তিনজন মেহেদী হাসান রানা, সাইফুদ্দিন ও তানজিম হাসান সাকিব মিলে নিয়েছেন প্রতিপক্ষের ৫৪ উইকেট। তাই দুইদলের লড়াইয়ের মাঝেও পেস অ্যাটাকের আলাদা একটা লড়াই দেখার অপেক্ষায় মিরপুর।

ছবিঃ বিসিবি
ছবিঃ বিসিবি

ডিপিএলের শিরোপা কার হাতে উঠবে তা জানার অপেক্ষা আরও কিছুক্ষন। তবে, এতো বিতর্কের জন্ম দেয়া টুর্নামেন্টের চ্যাম্পিয়নের নাম জানার জন্য লিগের শেষদিন পর্যন্ত অপেক্ষা ঢাকা লিগের মানই বাড়ায়, কমায় না। ঘরোয়া ক্রিকেটের এই উত্তেজনা আদোতে দেশের ক্রিকেটের জন্যই ভালো।

 

- Advertisement -spot_img
- Advertisement -

সর্বশেষ

- Advertisement -
- Advertisement -spot_img