১৪ জুন ২০২৪, শুক্রবার

“দুই ম্যাচেই জিতব এবং পরের পর্বে যাব”

- Advertisement -

সাউথ আফ্রিকার বিপক্ষে ৪ ওভারে ১৮ রান দিয়ে নিয়েছেন ৩ উইকেট। পাওয়াপ্লেতেই ৩ উইকেট শিকার, তানজিম হাসান সাকিবের পাওয়ার দেখেছে প্রোটিয়া টপ অর্ডার ব্যাটাররা। তবে সাকিবসহ বাকি বোলাররা কাজের কাজটা করলেও ব্যাটাররা পারেননি। বাজে আম্পায়ারিং ইস্যু তো আছেই, এমন ম্যাচ হারে ব্যাটারদের দায়ও একেবারে কম না। তবুও ম্যাচশেষে আইসিসির মিক্সড জোনে দেয়া সাক্ষাতকারে কাউকেই দুষলেন না টাইগার পেসার। তার মতে বাংলাদেশই দুর্ভাগা, তাই জেতা ম্যাচটাও হারতে হয়েছে।

“আমাদের আসলে লো স্কোরিং এই ম্যাচটা জেতা উচিত ছিল। আমার মনে হয় আমাদের ব্যাটসম্যানরা ভালোই ব্যাট করেছে, ওদের বোলাররা অনেক ভালো করছে। এই উইকেটে রান করা সহজ নয়। ব্যাটসম্যানরা অনেক চেষ্টা করেছে। আমরা দুর্ভাগা ছিলাম, তাই ম্যাচটা জিততে পারিনি”-বলছিলেন সাকিব 

বাংলাদেশের হারের গল্প একপাশে রাখলে বারবার তানজিম হাসান সাকিবের বোলিং পারফর্ম্যান্সের কথাই উঠে আসছে। অথচ, এই সাকিবই ছিলেন না বিশ্বকাপের দলে প্রথম পছন্দের তালিকায়। দল ঘোষণার দিন অনেকটা নাটকীয়তায় মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনের জায়গা স্কোয়াডে তানজিম হাসান সাকিবের অন্তর্ভুক্তি। সাউথ আফ্রিকার বিপক্ষে ম্যাচশেষেও তাই সেই সিলেকশন নিয়েও কথা বলতে হলো সাকিবকে।

“আমার কাজই হচ্ছে পারফর্ম করা। নির্বাচকেরা যেখানে আমাকে খেলাবে, সেখানেই পারফর্ম করব। আর এই বিশ্বকাপে আমি চেষ্টা করছি, প্রতিটি বলেই নিজের সেরাটা দেওয়ার। কোনো বলকেই আমি হালকাভাবে নিইনা। নিজের মানসিকতাকে সেভাবেই আমি সেট করেছি। আমি যদি ২৪টা বল করি, প্রতিটাই যেন সেরা বল হয়। মানসিকতায় এটুকু পরিবর্তন আমি নিয়ে আসছি”-সাকিব আরও বলেন 

এ ম্যাচ হারলেও সাকিবের বিশ্বাস, বাকি দুই ম্যাচ জিতে খুব ভালোভাবেই পরের রাউন্ডে যাবে বাংলাদেশ। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “ক্রিকেটটা তো টিম গেম। কখনো বোলাররা ভালো করবে, ব্যাটসম্যানরা ব্যাকআপ করবে। আবার কখনো ব্যাটসম্যানরা ভালো করবে, বোলাররা ব্যাকআপ করবে। এটা শেষ পর্যন্ত দলীয় খেলা। আমরা চেষ্টা করছি, যেন আমাদের খুব ভালো সমন্বয় হয়। তবে আমরা ভালো খেলছি। আমরা অনেক আত্মবিশ্বাসী। আমরা আশা করি পরের দুই ম্যাচ আমরা অনেক ভালো করব। দুই ম্যাচেই জিতব এবং পরের পর্বে যাব।”

 

- Advertisement -spot_img
- Advertisement -

সর্বশেষ

- Advertisement -
- Advertisement -spot_img