৭ অক্টোবর ২০২২, শুক্রবার

বাংলাদেশের ‘ব্যাখ্যাহীন’ ব্যাটিং

- Advertisement -

সাকিব-সাইফুদ্দিন নেই, নুরুল হাসান ফিট নন, বাংলাদেশের কি বিশ্বকাপে খেলার ইচ্ছেই মরে গেছে? অন্তত আজকের ব্যাটিং প্রদর্শনী দেখে তো তাই মনে হলো। শুধু কি রাবাদা-নরকিয়া বা শামসির বোলিংয়েই বিষ ছিলো? আগের তিন ম্যাচে হেরে গেলেও কি বাংলাদেশের শরীরী ভাষা এতো হতোদ্যম ছিলো? নয়তো মাত্র ৮৪ রানে অলআউট হওয়ার ব্যাখ্যা কি?

টসে জিতে বোলিং নেন টেম্বা বাভুমা। প্রথম তিন ওভার বিপদহীনই কাটে টাইগারদের, তবে চতুর্থ ওভার থেকে শুরু হয় তান্ডব। চতুর্থ ওভারের শেষ দুই বল, প্রথমে লোপ্পা ক্যাচ দিয়ে আউট হন নাইম শেখ, পরের বলেই দুর্দান্ত ইয়র্কারে এলবিডাব্লিউ সৌম্য সরকার। রিভিউতেও দেখা যায়, বল ব্যাটে লাগার আগে প্যাড ছুঁয়ে গেছিলো। নিজের পরের ওভারের প্রথম বলেই প্রায় নিয়ে ফেলেছিলেন মুশফিকুর রহিমের উইকেট! মুশফিক হ্যাটট্রিকটি পেতে দিলেননা কাগিসো রাবাদাকে, তবে ‘সান্ত্বনা’স্বরূপ দুই বল পরেই ক্যাচ তুলে দিয়ে নিজের উইকেট দিলেন ‘উপহার’।

৮ম ওভারের শেষ বলে নরকিয়ার ডেলিভারিটি গ্লাভস ছুঁয়ে যাওয়ার পরও রিভিউ নেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। পরের ওভারের প্রথম বলেই উড়িয়ে মারতে গিয়ে আউট আফিফ হোসেন। লিটন দাস করেন আরেকটি রিভিউ নষ্ট; আউট হন ২৪ রান করে। প্রথম ম্যাচ খেলতে নামা শামীম হোসেন ২০ বলে ১১ করে আউট হন।

৬৪ রানে ৭ উইকেট হারানো বাংলাদেশ নিজেদের খাতায় আর যোগ করতে পারে মাত্র ২০ রান, তাতেই হারায় বাকি তিনটি উইকেট। মাহেদী হাসানের ২৫ বলে ২৭ রানের ইনিংসটি না হলে হয়তো সেটুকুও হত না।

সংক্ষিপ্ত স্কোর: ১৮.২ ওভারে ৮৪ ( মাহেদী ২৭, লিটন ২৪; নরকিয়া ৩/৮, রাবাদা ৩/২০ )

- Advertisement -spot_img
- Advertisement -

সর্বশেষ

- Advertisement -
- Advertisement -spot_img