১৯ জুন ২০২৪, বুধবার

বাংলাদেশের ব্যাটের উজ্জ্বলতা আর পাল্লেকেলের আলো স্বল্পতার দিন

- Advertisement -

ঠিক প্রথম দিন যেখান থেকে শেষ করেছিল বাংলাদেশ সেখান থেকেই শুরু, প্রথম সেশনে দুর্দান্ত ব্যাটিং, শ্রীলঙ্কান বোলারদের কোনো সূযোগই দেননি মমিনুল হক আর নাজমুল হোসেন শান্ত; শান্তর দেড়শো, মুমিনুল তুলে নিয়েছেন সেঞ্চুরি, দেশের বাইরে প্রথম। তাদের দুজনের ২৪২ রানের জুটিও তৃতীয় উইকেটে বাংলাদেশের পক্ষে সর্বোচ্চ।

রেকর্ডের হিসেবে এমন অনেক রেকর্ডেই নাম বসেছে মুমিনুল হক এবং নাজমুল হোসেন শান্তর। দেশের বাইরে টেস্ট সেঞ্চুরি ছিল না, বাংলাদেশের দলের টেস্ট অধিনায়ক সেই অধরা সেঞ্চুরি দেখা পেয়েছেন, এই ম্যাচের আগেও দেশের বাইরে কমপক্ষে ৩০ ইনিংসে ব্যাট করেছেন এমন ক্রিকেটারদের মধ্যে মুমিনুলের গড় ছিল পঞ্চম সর্বনিন্ম।

মুমিনুল-শান্তর সেঞ্চুরির পর মুশফিকুর রহিম আর লিটনও ব্যাট চালিয়েছে ঠিকঠাক, প্রথমবার বৃষ্টির কারণে ক্ষণিকের জন্য বন্ধ হয়েছিল খেলা, দ্বিতীয়বার আলোর স্বল্পতার কারণে, ওখানেই শেষ।

দিনশেষে বাংলাদেশে তুলেছে ৪ উইকেটের বিনিময়ে ৪৭৪ রান। ৪৩ রান নিয়ে উইকেটে আছেন মুশফিকুর এবং ২৫ রান নিয়ে লিটন।

বাংলাদেশের প্রথম ইনিংসে যতো রেকর্ড:

প্রথম দিন:

  • দ্বিতীয় উইকেটে নাজমুল হোসেন শান্ত এবং তামিম ইকবালের ১৪৪ রানের পার্টারশিপ। গেলো বারো বছরে ঘরের বাইরে দ্বিতীয় উইকেটে একশোর বেশি রানের পার্টনারশিপ এবারই প্রথম। এর আগেও অবশ্য একই রেকর্ডে নাম তুলেছিলেন তামিম ইকবাল।
  • তামিম ইকবালের বয়স ঠিক বত্রিশ বছর বত্রিশ দিন (বুধবারের হিসেব), বুধবার তামিম ইকবাল আউট হয়েছেন টেস্ট ইতিহাসের ৮৮৮তম নার্ভাস নাইন্টিতে। বাংলাদেশী ব্যাটসম্যানদের মধ্যে তৃতীয় সর্বোচ্চ, পাঁচবার। মুশফিকুর রহিম সর্বাধিক সাতবার আউট হয়েছেন নার্ভাস নাইন্টিতে, সাকিব আল হাসান  ৬ বার।
  • সফররত ওপেনারদের মধ্য ২০১৩ সালের পর থেকে শ্রীলঙ্কায় সবচেয়ে বেশি ফিফটি করেছেন বাহাতি এই ওপেনার, চারটা। তিন ফিফটি নিয়ে তালিকায় আছেন আরেক নাম বাংলাদেশি সৌম্য সরকার।

দ্বিতীয় দিন:

  • সফরতদের মধ্য থেকে শ্রীলঙ্কায় সর্বোচ্চ রানের জুটি রস টেলর আর কেন উইলিয়ামসনের, ২৬২। সিরিজের প্রথম টেস্টের প্রথম ইনিংসে মুমিনুল হক আর নাজমুল হোসেন শান্তর ২৪২ রানের জুটি দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। একইসঙ্গে বাংলাদেশের হয়ে তৃতীয় উইকেটে সুর্বোচ্চ রানের জটি এই দুজনের।
  • নাজমুল হোসেন শান্ত এবং মুমিনুল হক দুজন মিলে ৫১৪ বল মোকাবেলা করেছেন। বলের হিসেবে বাংলাদেশের হয়ে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। বাংলাদেশের হয়ে যেকোনো উইকেট জুটিতে সবচেয়ে বেশি বল মোকেবেলা করার রেকর্ড মুশফিকুর রহিম এবং মোহাম্মদ আশরাফুলের, ৫১৮ বল।
  • টেস্টে এক ইনিংসে ৩০০ বা তার বেশি বল মোকেবেলা সপ্তম বাংলাদেশি ব্যাটসম্যান শান্ত, অষ্টম মুমিনুল। একই কাজ তিনবার করেছেন মুশফিকুর রহিম, জাভেদ ওমর বেলিম দুইবার। প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরিতে বাংলাদেশের হয়ে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান নাজমুল হোসেন শান্তর, সর্বোচ্চ মুমিনুল হকের, ১৮১।
  • তিন নম্বর পজিশনে বাংলাদেশের হয়ে দেড়শো বা তার বেশি রানের ইনিংস খেলা তৃতীয় ব্যাটসম্যান নাজমুল শান্ত। মুমিনুল হকের এই কীর্তি আছে দুই বার।

সংক্ষিপ্ত স্কোর: বাংলাদেশ: ৪৭৪/৪ (ওভার ১৫৫)   (নাজমুল হোসেন শান্ত ১৬৩, মুশফিকুর রহিম ১২৭, তামিম ইকবাল ৯০, মুশফিকুর রহিম ৪৩*, লিটন ২৫*, বিশ্ব ফার্নান্দো ২৮-৮-৭৫-২,  লাহুরা কুমারা ২৮-৪-৮৮-১, ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা  ২৭-১-১১২-১)

 

- Advertisement -spot_img
- Advertisement -

সর্বশেষ

- Advertisement -
- Advertisement -spot_img