১৪ জুলাই ২০২৪, রবিবার

ব্যাটে-বলে দুর্দান্ত সাকিব, রংপুরের কাছে পাত্তাই পেল না ঢাকা

- Advertisement -

সিলেট পর্ব শেষে আবারও ঢাকায় ফিরেছে বিপিএল। দ্বিতীয় ধাপে মিরপুর শের-ই-বাংলায় গড়ানো দেশের সবচেয়ে বড় ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগে প্রথম ম্যাচে দুর্দান্ত ঢাকাকে উড়িয়ে দিয়েছে রংপুর রাইডার্স। নুরুল হাসান সোহানের দলের কাছে পাত্তাই পায়নি মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতের দল। ৬০ রানের জয়ে পয়েন্ট টেবিলে নিজেদের শীর্ষস্থান আরও মজবুত করল রংপুর।

চলমান বিপিএলে এতদিন পর্যন্ত শুধুমাত্র বোলার সাকিব আল হাসানকেই দেখা গিয়েছিল। চোখের সমস্যার কারনে ব্যাট করতে পারছিলেন না ঠিকঠাক। তবে মঙ্গলবার মিরপুর শের-ই-বাংলায় দেখা গেল অন্য সাকিবকে। দুর্দান্ত ঢাকার বিপক্ষে তিনে নেমে খেলেছেন দুর্দান্ত ইনিংস। সেই সাথে বাবর আজমের দায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ে রংপুর ৪ উইকেট হারিয়ে সংগ্রহ করে ১৭৫ রান।

বাজে ফর্মের কারনে রংপুরের একাদশ থেকে বাদ পড়েছিলেন রনি তালুকদার। একাদশে সুযোগ পেয়েই জ্বলে উঠেছিলেন ডানহাতি এ ব্যাটার। ঢাকার বোলারদের উপর চড়াও হয়ে খেলেছেন তিনি। প্রথম উইকেট জুটিতে বাবরের সাথে ৬৭ রানের জুটি গড়ে রংপুরকে এনে দিয়েছেন দারুণ ভিত। ২৪ বলে ৬ বাউন্ডারি ও ১ ছক্কায় ৩৯ রান করে প্যাভিলিয়নে ফিরেছেন রনি।

২০ বলে ৩৪ রান করার পাশাপাশি বল হাতে ৪ ওভারে ৩ উইকেট নিয়েছেন সাকিব

আরেক ওপেনার বাবর খেলেছেন বাবর সুলভ ইনিংস। ৪৩ বলে ৫ বাউন্ডারিতে ৪৭ রান করে একপ্রান্ত আগলে ধরে রেখেছিলেন তিনি। যা কাজে লাগিয়েছেন বাকি ব্যাটাররা। তিন নম্বরে উইকেটে এসে কয়েকটা বল দেখেশুনে খেলেছেন সাকিব। তবে এদিন শুরু থেকেই আত্ববিশ্বাসী ছিলেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার। সময় যত গড়িয়েছে ততই খুনে মেজাজে ব্যাটিং করেছেন সাকিব। মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতের বলে তুলে মারতে গিয়ে আউট হওয়ার আগে ২০ বলে ১ বাউন্ডারি ও ৩ ছক্কায় করেছেন ৩৪ রান।

সাকিব-বাবরদের এনে দেওয়া ভিত শেষের দিকে দারুণভাবে কাজে লাগিয়েছেন নুরুল হাসান সোহান ও মোহাম্মদ নবি। ১০ বলে ১৬ রান করে অপরাজিত ছিলেন সোহান, নবি করেছেন ১৬ বলে ৩ ছয়ে ২৯ রান।

ঢাকার হয়ে ৪ ওভারে ৩০ রান দিয়ে ২ উইকেট শিকার করেছেন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। একটি করে উইকেট নিয়েছেন আরাফাত হোসেন সানি ও সাব্বির হোসেন।

১৭৬ রানের লক্ষ্যে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতেই আজমতউল্লাহ ওমরজাই ও শেখ মাহেদী হাসানের তোপের মুখে পড়ে। প্রথম চার ওভারে স্কোরবোর্ডে মাত্র ৪ রান তুলতেই সাব্বির হোসেন ও সাইম আইয়ুবের উইকেট হারায় তারা। একটু পর ফিরে যান অ্যালেক্স রসও।

দুটি করে উইকেট নিয়েছেন হাসান মাহমুদ ও শেখ মাহেদী হাসান

তবে ওপেনার নাঈম শেখ ছিলেন এদিন দুর্দান্ত। একপ্রান্ত একাই আগলে রেখেছিলেন তিনি। ৩১ বলে ৩ বাউন্ডারি ও ৩ ছক্কায় করেছেন ৪৪ রান। ঢাকার অন্য ব্যাটাররা পারেননি প্রত্যাশা মাফিক ব্যাটিং করতে। নাঈমের পর সর্বোচ্চ ২১ রান করেছেন ইরফান শুক্কুর। এতেই বোঝা যায় রংপুরের বোলারদের সামনে কতটা অসহায় ছিলেন ঢাকার ব্যাটাররা।

রংপুরের হয়ে ৪ ওভারে ১৬ রান দিয়ে ৩ উইকেট শিকার করেছেন সাকিব আল হাসান। দুটি করে উইকেট নিয়েছেন শেখ মাহেদী হাসান, সালমান ইরশাদ ও হাসান মাহমুদ।

- Advertisement -spot_img
- Advertisement -

সর্বশেষ

- Advertisement -
- Advertisement -spot_img