৭ ডিসেম্বর ২০২২, বুধবার

বড় জয়ে ইউরোর রাউন্ড অব সিক্সটিনে ক্রোয়েশিয়া

- Advertisement -

ওয়েম্বলিতে চেক রিপাবলিককে ১-০ গোলে হারিয়েছে ইংল্যান্ড। স্কটল্যান্ডে স্বাগতিকদের বিরুদ্ধে ক্রোয়েশিয়ার জয় ১-৩ গোলে। ডি গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন ইংল্যান্ড এবং রানার্স-আপ ক্রোয়েশিয়া। ক্রোয়েশিয়ার সাথে হারে টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় স্কটল্যান্ডের।

ইউয়েফা ইউরোর “ডি” গ্রুপের রাউন্ড অফ সিক্সটিনে যায়গা পাকাপোক্ত করতে চার দলই মাঠে নামে ২৩ জুন বাংলাদশ সময় রাত ১ টায়। পয়েন্টের অংকের মারপ্যাঁচে ওয়েম্বলি স্টেডিয়ামে মুখোমুখি হওয়া চেক রিপাবলিক ও ইংল্যান্ডের পরের রাউন্ডে যাওয়ার জন্য ড্রই যথেষ্ট ছিল। অপরদিকে স্কটল্যান্ডের হ্যাম্পডেন পার্কে মাঠে নামা স্কটল্যান্ড ও ক্রোয়েশিয়ার জয় ছাড়া পরের রাউন্ডের রাস্তা ছিল বন্ধ।

 

ইংল্যান্ডের জার্সি গায়ে প্রথমবারের মতো এই আসরে মাঠে নামা জ্যাক গ্রিলিশ ম্যাচে অবদান রাখতে সময় নেন দশ মিনিটের চেয়ে খানিক বেশি। বামদিক দিয়ে গ্রিলিশের উড়ন্ত ক্রসেই টুর্নামেন্টে দল ও নিজের ২নম্বর  গোল আসে রহিম স্টার্লিংয়ে হেড থেকে; ঘড়ির কাঁটায় খেলার তখন গেছে সবে ১২ মিনিট। শুরুতেই পাওয়া এই লিড ইংল্যান্ড হেলায় হারায়নি। আগের দুই ম্যাচে ডিফেন্সিভ ফুটবল খেলার অপবাদে সোশ্যাল মিডিয়ায় ইংলিশ ম্যানেজার গ্যারেথ সাউথগেটের সমালোচনা হলেও এই ম্যাচেও যথারীতি গোল দেয়ার চেয়ে গোল রক্ষার মনোভাবেই বেশি গুরুত্ব দেন তিনি। ৫৬ শতাংশ বলের দখল নিয়ে চেক অ্যাটাকারদের নিজের গোল পর্যন্ত পৌঁছাতে না দেয়ার মিশনে যে সাউথগেট এবং ইংলিশ রক্ষণ পাশ মার্ক পেয়েছে তা ইংলিশদের গোলে চেক রিপাবলিকের একটি মাত্র ‘অন টার্গেট শটই প্রমাণ দেয়।

গ্রুপ পর্বের প্রথম দুই ম্যাচে ১ পয়েন্ট পাওয়া ক্রোয়েশিয়ার রাউন্ড অব সিক্সটিন নিশ্চিত করতে স্কটল্যান্ডের সাথে বড় ব্যবধানে জিততে হতো; স্কটিশদের ১-৩ গোলে হারিয়ে সে কাজটিই করেছে ক্রোয়েটরা। ৪-২-৩-১ ফরম্যাশনে মাঠে নামা ক্রোয়েশিয়ার মাঝমাঠের তিনজনই গোল পেয়েছেন এদিন। ১৭ মিনিটে গোলের দরজা খোলেন এটাকিং মিডফিল্ডার নিকোলা ভ্লাসিচ। ইভান পেরিসিচের বাড়ানো বল স্কটিশ গোলি ডেভিড মার্শালের বামদিক দিয়ে গোলে পাঠান ভ্লাসিচ। বিরতির ঠিক আগে গোলের ২০ গজ দূর থেকে ক্যালাম ম্যাকগ্রেগরের গোলে সমতায় ফেরে স্কটল্যান্ড।

গ্রুপ রানার্স-আপ হয়ে পরের রাউন্ডে যেতে হলে ক্রোয়েশিয়ার দরকার ছিল দুই গোলের ব্যবধানে জয়। গোল ব্যবধান বাড়িয়ে জিততে বিরতির পর আক্রমনাত্নক খেলতে থাকে ক্রোয়েশিয়া। এক ঘন্টা পেরোনোর মিনিট দুইয়েক পরই ক্রোয়েশিয়া ক্যাপ্টেন লুকা মদ্রিচ ২-১ গলে এগিয়ে নেন দলকে। এই গোলেই ৩৫ বছর বয়সে গোল করে ইউরোর ইতিহাসে ক্রোয়েশিয়ার সবচেয়ে বেশি বয়স্ক গোল স্কোরার হন লুকা মদ্রিচ। মদ্রিচের গোলে অ্যাসিস্টে ছিলেন মাতেও কোভাচিচ। লিড ফিরে পাওয়ার পর ক্রোয়েশিয়ার টার্গেট ছিল গোলের ব্যবধান বাড়ানো। আর গোলের খোঁজেই প্রথম গোলের অ্যাসিস্টদাতা  পেরেসিচ এবার নিজেই গোল করেন ৭৭ মিনিটে। ক্রোয়েটদের ৩ নম্বর গোলের কারিগর ছিলেন অধিনায়ক মদ্রিচ নিজে। তার ক্রসে মাথা ছুঁইয়েই ক্রোয়েশিয়াকে লক্ষ্যে পৌঁছান পেরিসিচ। বাঁকি সময় ৩-১ গোলের লিড ধরে রেখে  চেক রিপাবলিককে গোল ব্যবধানে পিছিয়ে এই গ্রুপের রানার্স-আপ হয়ে পরের রাউন্ড নিশ্চিত করে ক্রোয়েশিয়া।

- Advertisement -spot_img
- Advertisement -

সর্বশেষ

- Advertisement -
- Advertisement -spot_img