২৩ এপ্রিল ২০২৪, মঙ্গলবার

মহামারীর সময় মানুষকে বিনোদন দিচ্ছে পাকিস্তান

- Advertisement -

প্রয়োজন ৩০ বলে ৩০ রান, সেই ম্যাচই আবার গড়িয়েছে শেষ বল পর্যন্ত, বাবর আজমের সেঞ্চুরি আর ইমাম উল হকের ফিফটিতে পাকিস্তানের রোমাঞ্চকর জয়। ম্যাচের পর সংবাদ সম্মেলনে এসেছিলেন ইমাম উল হক। মানুষের আবেগের সাথে খেলছে কিনা এমন প্রশ্নের উওরে পাকিস্তানি এই ক্রিকেটার বলেছেন, মহামারীর সময়ে মানুষকে খানিকটা বিনোদন দেওয়ার চেষ্টা করছেন তারা।

সেঞ্চুরিয়ানে ২৭৪ রানের লক্ষ্যে পাকিস্তান ছিল দুর্দান্ত, বাবর আজম এবং ইমাম উল হকের ১৭৭ রানের জুটি, দ্বিতীয় উইকেটে রান তাড়ায় পাকিস্তানের ইতিহাসের সর্বচ্চো। পাকিস্তানি অধিনায়ক বাবর আজম করেছেন ১০৪ বলে ১০৩ রান। ৭৬ ইনিংসে বাবর আজমের শতক এখন ১৩, এতো কম ইনিংসে ১৩ শতকের দেখা পাননি কোনো পাকিস্তানি ক্রিকেটার।

সেঞ্চুরির পর সৃষ্টিকর্তার কাছে বাবর আজমের কৃতজ্ঞতা

দলীয় ১৮৬ রানে আউট হন বাবর আজম, ১৭ রানের ব্যবধানে ৪ উইকেট হারিয়ে বিপদ দেখছিল সফরতরা, তবে উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ রিজওয়ান এবং শাদাব খানের ব্যাটে আবার লড়াইয়ে ফেরে পাকিস্তান, শেষদিকে আবার টুইস্ট; তবে ফাহিম আশরাফ এবং শাহীন আফ্রিদি জয় নিয়েই মাঠ ছাড়েন।

নরকিয়া উড়েতে চেয়েছে, তবে উড়তে পারেনি সাউথ আফ্রিকা

তুলনামূলক স্লো উইকেটে টসে জিতে প্রথমে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল পাকিস্তান। ৫৫ রানে ৪ উইকেট হারান সাউথ আফ্রিকা ঘুঁড়ে দাঁড়ায় ফন ডার ডাসেন এবং ডেভিড মিলারের ব্যাটে, ডাসেন করেন শতক, মিলার পঞ্চাশ, পাকিস্তানের হয়ে শাহীন আফ্রিদি এবং হারিস রউফ নিয়েছেন দুটি করে উইকেট।

সাফল্য, ব্যর্থতা

সংক্ষিপ্ত স্কোর: সাউথ আফ্রিকা:  ২৭৩/৬ (৫০ ওভার) (ডাসেন ১২৩*, মিলার ৫০, আফ্রিদি ১০-১-৬১-২, হাসনাইন ১০-২-৫২-১, ফাহিম ৯-০-২৫-১, রউফ ১০-০-৭২-২)।

পাকিস্তান:  ২৭৪/৭ (৫০ ওভার) (বাবর আজম ১০৩, ইমাম ৭০, রিজওয়ান ৪০, শাদাব ৩৩, ফাহিম ৫*, আফ্রিদি ০*, রাবাদা ১০-১-৫১-১, নরকিয়া ১০-০-৫১-৪, ফেলুকওয়ায়ো ১০-০-৫৬-২)।

- Advertisement -spot_img
- Advertisement -

সর্বশেষ

- Advertisement -
- Advertisement -spot_img