৬ অক্টোবর ২০২২, বৃহস্পতিবার

মানুষ এমন কিছু খুঁড়ে বের করতে চাচ্ছে যা সেখানে নেই: ভিরাট কোহলি

- Advertisement -

মাঠে ফিল্ডিং করার সময় যতই উত্তেজিত থাকুন, মাঠের বাইরে ভিরাট কোহলি তার কভার ড্রাইভ বা ক্লিকের মতোই মনোহর ও আকর্ষণীয় ব্যক্তিত্ত্ব। কোহলির মতো গোছানো, পূর্ণ পেশাদার ও কম কথার মানুষ যখন টুইটারে ঘোষণা দিলেন যে তিনি এই বিশ্বকাপের পরই টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে অধিনায়কত্ব ছাড়বেন, এবং তার সুষ্পষ্ট কারণও বলে দিলেন। এরপরও যখন জনে জনে এসে তাঁর কাছে একই কথার জবাবদিহিতা চাইবেন, কোহলির ক্ষেপে যাওয়াটাই স্বাভাবিক।

এবং সেটিই গেলেন কোহলি। পাকিস্তান ম্যাচের পূর্বে সংবাদ সম্মেলনেও একজন সাংবাদিক আবারো টি-টোয়েন্টি অধিনায়কত্ব ছাড়ার প্রসঙ্গ তুলে কোহলিকে খানিকটা ‘খোঁচা’ই যেন দিতে চাইলেন। কোহলির পাল্টা জবাবটাও হলো তাঁর অধিনায়কত্বের মতোই আগ্রাসী

“আমি এই বিষয়ে ব্যাখ্যা দিয়ে ফেলেছি এবং আমার মনে হয়না আমার আর এই প্রসঙ্গে কথা খরচ করার আর কোন প্রয়োজন আছে। আমরা বিশ্বকাপে এসেছি ভালো খেলতে এবং সেটাতেই মনোনিবেশ করতে চাই। আমার মনে হয় মানুষ এমন কিছু খুঁড়ে বের করতে চাইছে যা সেখানে কখনোই ছিলনা। কেউ যদি মনে করেন আমি যা বলেছি তার পরেও আরো অনেক কথা আছে, তাহলে তাদের জন্য আমার করুণা হয়!”   

এমন জবাবের পর আর কারো এই প্রসঙ্গে আরেকটি প্রশ্ন করার সাহস হয়নি!

পাকিস্তানের হাইভোল্টেজ ম্যাচ দিয়ে রবিবার নিজেদের বিশ্বকাপ শুরু করতে যাচ্ছে ভারত। পাকিস্তানের বিপক্ষে ওয়ানডে টি-টোয়েন্টি মিলিয়ে বিশ্বকাপে বারো বারের সাক্ষাতে একবারও তারা হারেনি। বিশেষ করে শেষ কয়েকটি বিশ্বকাপ হিসাব করলে পাকিস্তানকে রীতিমতো ‘উড়িয়েই’ দিয়েছে ভারত। এই টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ভারত শুরুই করছে পাকিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে। আত্মতৃপ্তি হোক বা আত্মবিশ্বাস-চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীদের বিপক্ষে জয় দিয়ে বিশ্বকাপের শুভসূচনা করতে অতীত রেকর্ডের দিকে তাকিয়ে কি এই দুটোর একটি, অথবা দুটোই কি অনুভব করছে না ভারত?

মহারণের আগের দিন শনিবার সংবাদ সম্মেলনে এসে অবশ্য ভারত অধিনায়ক ভিরাট কোহলি বললেন, অতীত রেকর্ড এসব মঞ্চে কোন কাজেই আসে না।

“পাকিস্তান বরাবরই শক্তিশালী দল। আমরা তাদের হালকাভাবে নিচ্ছি না এবং এই ম্যাচটি আমরা সেভাবেই খেলব যেভাবে আমরা অন্যান্য দলের বিপক্ষে খেলতে যাচ্ছি। রেকর্ড আমাদের কাছে খুব বেশি গুরুত্বপূর্ণ নয় এবং দলও এসবে খুব বেশি মনোযোগ দেয় না।”

তবে টি-টোয়েন্টি খেলায় যে কেউ যেকাউকে যে কোন মুহুর্তে হারাতে পারেন এই কথাটার ব্যাখ্যাও কোহলি দিয়েছেন সুন্দরভাবে,

“টি-টোয়েন্টিতে তিন চার ওভার নয়, তিন-চার বলেই খেলা চেঞ্জ হয়ে যায়। কোন ব্যাটসম্যান যখন কোন বোলারের কয়েকটি বল খেলতে সমস্যায় পড়ে, অথবা কোন বোলার যখন একজন ব্যাটসম্যানের হাতে চার খাওয়ার পর কয়েকটি বল দারুণভাবে ফিরে আসে তখনই আপনি বুঝতে পারেন যে খেলার মোড় ঘুরে যাচ্ছে।”

পাকিস্তান বনাম ভারত মানে ‘পাকিস্তানের বোলিং বনাম ভারতের ব্যাটিং’ই সবসময় হয়ে এসেছে। তবে কোহলির আগে সংবাদ সম্মেলনে এসে বাবর আজম জানিয়ে গেছেন, এবার পাকিস্তানের ব্যাটিং ভারতের বোলিংকে টেক্কা দিতে সক্ষম। কোহলি অবশ্য এই প্রশ্নেরও দিলেন কভার দিয়ে সপাটে বাউন্ডারি হাঁকানোর মতো উত্তর।

“এর আগে বিশ্বকাপে প্রতিবারই আমরা তাদের হারিয়েছি। তখন কি আমাদের ভালো বোলার ছিলনা? আমাদের তখনো ভালো বোলার ছিল, এখনো আছে। আমাদের শুধু মাঠে নিজেদের কাজটা করে দেখাতে হবে!”

 

 

- Advertisement -spot_img
- Advertisement -

সর্বশেষ

- Advertisement -
- Advertisement -spot_img