৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, শুক্রবার

মিরাজ রোমাঞ্চে জয় পেল বাংলাদেশ

- Advertisement -

ম্যাচে তখন বাংলাদেশের সংগ্রহ ৯ উইকেটে ১৩৬ রান। এমন পরিস্থিতিতে, সবার মাঝে অপেক্ষা ছিল শুধু পরাজয় দেখার। ক্রিকেটারদের মত মাঠ ও মাঠের বাইরে দর্শকদের চোখে-মুখে ছিল হতাশা। কিন্তু ক্রিকেট যে অনিশ্চিয়তার খেলা। কে জানতো মেহেদী মিরাজ বুনবেন জয়ের মালা! শেষ পর্যন্ত নাটকীয় ম্যাচে, মিরাজ রোমাঞ্চে এক উইকেটে ভারতের বিপক্ষে জয় পায় বাংলাদেশ।

‘লো স্কোরিং’ ম্যাচে টাইগারদের জয়

এর আগে টস জিতে ভারতকে ব্যাটিংয়ে পাঠায় বাংলাদেশ। শুরুতে বেশ ধীরে-সুস্থেই ব্যাটিং করেন ভারতীয় দুই ওপেনার রোহিত শর্মা এবং শিখর ধাওয়ান। ১৭ বলে মাত্র ৭ রান করা ধাওয়ানকে সাজঘরে ফেরান মেহেদী মিরাজ। পাওয়ারপ্লেতে ভারত তোলে ১ উইকেটে ৪৮ রান। এরপর ১১তম ওভারে রোহিত শর্মা এবং ভিরাট কোহলিকে আউট করে ভারত শিবিরে বড় ধাক্কা দেন সাকিব আল হাসান।

মিরাজের হুঙ্কার

দলীয় ৪৯ রানেই ৩ উইকেট হারায় ভারত। রোহিত ৩১ বলে ২৭ এবং কোহলি ১৫ বলে করেন ৯ রান। ভারতীয় ব্যাটারদের ব্যর্থতার ভিড়ে ওয়ানডে ক্যারিয়ারের ১১তম ফিফটি তুলে নেন লোকেশ রাহুল, ৭০ বলে করেন ৭৩ রান। শেষ পর্যন্ত ৪১.২ ওভারে সব উইকেট হারিয়ে ভারত তোলে মাত্র ১৮৬ রান। সাকিব আল হাসান ১০ ওভারে মাত্র ৩৬ রান খরচায় শিকার করেন ৫ উইকেট। ভারত শিবিরে ঝড় তোলা আরেক টাইগার বোলার ইবাদত হোসেন, ৮.২ ওভারে ৪৭ রান ব্যয়ে নিয়েছেন ৪ উইকেট ।

সহজ রান তাড়া করতে নেমেই উইকেট হারায় বাংলাদেশ

জবাবে শুরুতেই টাইগার ব্যাটার নাজমুল হোসেন শান্ত করেন হতাশ। বিনা রানেই উইকেট হারায় বাংলাদেশ। ২৬ রানের মাথায় এনামুল হক বিজয়কে হারিয়ে বিপাকে পড়ে বাংলাদেশ। ৬৩ বলে ৪১ রান করে সাজঘরে ফেরেন অধিনায়ক লিটন দাশ। লিটনের পর বাইশ গজে বোলিংয়ের মত ব্যাটিংয়েও আশার আলো দেখান সাকিব আল হাসান। ৩৮ বল খেলে ২৯ রানেই আটকে যায় সাকিবের ইনিংস। ম্যাচ থেকে পিছিয়ে পড়ে বাংলাদেশ।

দায়িত্ব নিতে ব্যর্থ মুশফিক-রিয়াদ
এরপর মাহমুদুল্লাহ্ রিয়াদ আর মুশফিকুর রহিম দলের হাল ধরতে চাইলেও তা পেরে উঠতে পারেননি। রিয়াদ ১৪ আর মুশফিক করেন ১৮ রান। তাদের দুজন প্যাভিলিয়নে ফেরার পর ভরসার পাত্র ছিলেন আফিফ হোসেন ধ্রুব। অন্যদের মত এ ফিনিশারও ছিলেন অনুজ্জ্বল। মাত্র ৬ রানেই শেষ হয় তার ইনিংস। আফিফের পর বাইশ গজে আসেন মেহেদী হাসান মিরাজ।

কঠিন পরিস্থিতি থেকে দলকে জয় তুলে দেন মেহেদী মিরাজ

দলীয় ১৩৬ রানে ৯ উইকেটের পতন হলে, সবাই তখন ধরেই নিয়েছিল ভারতের বিপক্ষে টাইগারদের আরেকটি পরাজয়। তবে তখনো যে মিরাজ শো বাকি তা জানতো না কেউই। বাইশ গজে থাকা এ অলরাউন্ডার ধীরে ধীরে হয়ে উঠেন টাইগারদের আশার ফুল। তার ব্যাট থেকে আসা শুরু করে একের পর এক বাউন্ডারি। কিন্তু তা হয়তো শুধু হারের ব্যবধানটাই কমছে, হয়তো এমনটাই ছিল দর্শকদের ভাবনা। কিন্তু মিরাজ ছিলেন আত্মবিশ্বাসী। দলকে খাদের কিনারা থেকে তুলে আনতে একাই নেন দায়িত্ব।

খাদের কিনারা থেকে এমন জয়ে নিশ্চিত খুশি টাইগার ক্রিকেটাররা
শেষ পর্যন্ত টানটান উত্তেজনায় মিরাজের ৩৮*(৩৯) রানে ‘লো স্কোরিং’ ম্যাচে এক উইকেট হাতে রেখে জয়ের প্রান্তে চলে যায় বাংলাদেশ। তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজে ১-০ তে এগিয়ে গেল বাংলাদেশ। বুধবার মিরপুরে বেলা ১২টায় অনুষ্ঠিত হবে সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচটি।

 

 

 

- Advertisement -spot_img
- Advertisement -

সর্বশেষ

- Advertisement -
- Advertisement -spot_img