৭ ডিসেম্বর ২০২২, বুধবার

রিয়াল-চেলসির দুর্দান্ত শুরু

- Advertisement -

গত মৌসুমে ধাঁরে খেলতে গিয়েছিলেন নিজের সাবেক ক্লাব টটেনহ্যামে; নতুন মৌসুমে যখন রিয়ালের জার্সিতে ফিরলেন, নিজের পারফরম্যান্স দিয়ে জানিয়ে দিলেন তিনি যে এখনও ফুরিয়ে যাননি। কার্লো আনচেলত্তির অধীনে ২০১৩-১৫ মৌসুমে দুর্দান্ত ছন্দে থাকা গ্যারেথ বেলকে কোনো এক অদৃশ্য কারণে দলে জায়গা  দিতে পারছিলেন না জিনেদিন জিদান। জিদানের পরিকল্পনায় ছিলেন না বলেই চলে গিয়েছিলেন টটেনহ্যামে। নতুন মৌসুমে আনচেলত্তির সাথে সাথে রিয়ালে ফিরলেন বেলও, জয় দিয়ে বেলকে বরণ করে নিলো রিয়ালও।

রিয়ালের হয়ে দুইটি গোল করেছেন বেনজেমা

আলাভেজের মাঠে তাদের বিপক্ষে ৪-১ গোলে জিতেছে রিয়াল; ম্যাচের ৫টি গোলই হয়েছে দ্বিতীয়ার্ধে। ৪৮ মিনিটে বেলজিয়ান ফরোয়ার্ড  ইডেন হ্যাজার্ডের বাড়ানো বলে অসাধারণ এক ভলিতে আলভেজের জালে বল জড়ান করিম করিম বেনজেমা। ৫৬ মিনিটে লুকা মদ্রিচের বাড়ানো পাসে গোল করেন নাচো ফার্নান্দেজ; ৬২ মিনিটে গোল করে ব্যবধান বড় করেন বেনজেমা।  ৬৫ মিনিটে একটি গোল শোধ করে আলভেজ; পেনাল্টি থেকে গোল করেন জসেলু। ৯২ মিনিটে ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড ভিনিসিয়াস জুনিয়রের  গোলে ৪-১ ব্যবধানে এগিয়ে থেকে ম্যাচ শেষ করে রিয়াল।

জয় দিয়ে শুরু করেছে চেলসিও

প্রিমিয়ার লিগে নিজেদের মাঠে ৩-০ গোলে ক্রিস্টাল প্যালেসকে হারিয়েছে চেলসি। গত মৌসুমের চ্যাম্পিয়ন্সলিগ জয়ীরা পুরো মৌসুম জুড়েই ভুগেছে গোল সংকটে। এজন্যই নতুন মৌসুমে তারা দলে ভিড়িয়েছে রোমেলু লুকাকুকে। প্রথম দুই ম্যাচে তাকে দলে না পাওয়া গেলেও শুরুটা দুর্দান্ত করেছে চেলসি।

চেলসির হয়ে দ্বিতীয় সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড় হিসেবে গোল করার রেকর্ড গড়েছেন ট্রেভো চালোবাহ

ম্যাচের ২৭ মিনিটে ডি বক্সের বাইরে পাওয়া ফ্রি-কিক থেকে বাঁ পায়ের দুর্দান্ত শটে গোল করে চেলসিকে ১-০ গোলের লিড এনে দেন স্প্যানিস ডিফেন্ডার আলোনসো। ৪০ মিনিটেই দ্বিতীয় গোলের দেখা পেয়ে যায় চেলসি।  প্রতিপক্ষ গোলকিপারের গ্লাভস থেকে ফেরা বল থেকে গোল করে দলকে এগিয়ে দিয়েছেন চেলসি উইঙ্গার ক্রিস্টিয়ান পুলিসিক। ৫৮ মিনিটে অভিষেকে চেলসির হয়ে দ্বিতীয় সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড় হিসেবে গোল করার রেকর্ড গড়েছেন ট্রেভো চালোবাহ। ডি-বক্সের সামনে বল পেয়ে গোলার মতো এক শটে দলকে এনে দিয়েছেন ৩-০ গোলে জয়।

বুন্দেসলিগায় হালান্ডের দুর্দান্ত পারফরম্যান্সে উড়ন্ত সূচনা পেয়েছে বুরুশিয়া ডর্টমুন্ড। ঘরের মাঠে ফ্রাঙ্কফুর্টকে ৫-২ গোলের ব্যবধানে হারিয়েছে ডর্টমুন্ড। দলের পাঁচ গোলের মধ্যে চারটিতেই আছে হালান্ডের অবদান। নিজে তো দুইটি গোল করেছেনই, সতীর্থদের দিয়ে করিয়েছেন আরও দুটি গোল।

দলের চারটি গোলে রেখেছেন অবদান

ম্যাচের ২৩তম মিনিটে দুর্দান্ত প্রতি আক্রমণে বল নিয়ে ফ্রাঙ্কফুর্টের ডি-বক্সে ঢুকে পড়েন হালান্ড। সেখান থেকে ব্যাক হিলে বল পাস করেন মার্কো রয়েসকে। ডি-বক্সে বল পেয়ে দারুণ এক গোলে বরুশিয়াকে গোল এনে দেন রয়েস। ২৭ মিনিটেই ফেলিক্স পাসল্যাকের আত্মঘাতী গোলে লিড হারায় বরুশিয়া।  কিন্তু ১-১ এর সমতা ধরে রাখতে পারেনি তারা। ৩২ মিনিটে ডি-বক্সের ডান দিক থেকে হালান্ডের বাড়ানো বল পেয়ে ডান পায়ের দুর্দান্ত শটে লক্ষ্যভেদ করেন থোরগান হ্যাজার্ড। তাতেই ২-১ গোলের ব্যবধানে লিড নেয় বরুশিয়া। ৩৪ মিনিটে হালান্ডের বাম পায়ের শটে এগিয়ে যায় ডর্টমুন্ড। ৫৮ মিনিটে ডি বক্সের ভেতরে বল পেয়ে দলকে ৪-১ ব্যবধানে এগিয়ে দেন জিওভাননি রেইনা। ৭০ মিনিটে মার্কো রয়েসের বাড়ানো বলে গোল করে দলকে ৫-১ ব্যবধানের লিড এনে দেন হালান্ড। ৮৬ মিনিটে ফ্রাঙ্কফুর্টের হয়ে গোল করে শুধু হারের ব্যবধানটাই কমাতে পারেন পিটার হগ।

- Advertisement -spot_img
- Advertisement -

সর্বশেষ

- Advertisement -
- Advertisement -spot_img