২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, মঙ্গলবার

রোনালদোকে সতর্ক বার্তা দিয়ে পুলিশি তদন্তের নিষ্পত্তি

- Advertisement -

কঠোর পরিশ্রম এবং দৃঢ় মনোবলের কারণে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো যেমন বিশ্বব্যাপী সমাদৃত, তেমনি উগ্র মেজাজের জন্যও মাঝেমধ্যেই হন নিন্দিত। এই যেমন, গেল এপ্রিলে এভারটনের এক ভক্তের মোবাইল মাটিতে আছাড় দিয়ে ভেঙ্গে ফেলে ব্যাপক সমালোচনার শিকার হয়েছিলেন সিআরসেভেন। এমনকি, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড তারকাকে পড়তে হয় পুলিশের তদন্তের মুখে! ঘটনার ৪ মাস পর অফিশিয়ালি তদন্ত শেষ করেছে মার্সিসাইড পুলিশ।

বুধবার এ ঘটনার তদন্ত শেষে এক বিবৃতিতে মার্সিসাইড পুলিশ জানায়, “তদন্ত এখন শেষ হয়েছে। আমরা নিশ্চিত করতে পারি যে তিনি স্বেচ্ছায় এখানে উপস্থিত হয়েছিলেন এবং তার ওপর আনা অভিযোগের বিষয়ে সতর্কতার সাথে আমাদেরকে সাক্ষাৎকার দিয়েছেন। অভিযোগটি ৯ এপ্রিল শনিবার গুডিসন পার্কে এভারটন বনাম ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ফুটবল ম্যাচের পরে একটি ঘটনার সাথে সম্পর্কিত। বিষয়টি শর্তসাপেক্ষ সতর্কতার মাধ্যমে মোকাবেলা করা হয়েছে।”    

গত মৌসুমে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের ৯ এপ্রিলের ম্যাচে এভারটনের কাছে ১-০ গোলে হেরে রোনালদোর দল ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। হারার পর মাঠ ছাড়ার সময় এক এভারটন-সমর্থক তার ভিডিও করার সময় ভক্তের হাত থেকে ফোন কেড়ে নিয়ে মাটিতে আছাড় দিয়ে ভেঙ্গে ফেলেন রোনালদো। পরবর্তীতে ভিডিওটি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে যায় এবং তার এমন আচরণে নিন্দার ঝড় উঠে।

ঘটনার পর ভক্তের কাছে ক্ষমা চেয়েছিলেন রোনালদো; ছবি: ইন্সটাগ্রাম

অবশ্য ঘটনার পর, রোনালদো তার ‘ক্ষোভ এবং উগ্র’ আচরণের জন্য সোশ্যাল মিডিয়া ক্ষমাও চেয়েছিলেন এবং সেই সমর্থককে ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে একটি খেলা দেখার আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন। তবে ক্ষমা চেয়েই পার পাননি তিনি, ঘটনা তদন্তের ভার পড়ে পুলিশের উপর।

গুডিসন পার্কের সেই ঘটনার পরে ভক্তকে আক্রমণ এবং অপরাধমূলক আচরণের অভিযোগে সিআরসেভেনের সাক্ষাৎকার নেয় তদন্তকারী পুলিশ অফিসার। বৃটিশ আইনের অনুযায়ী ছোটখাটো অপরাধ করার পর যদি অপরাধকারী ব্যক্তি দোষ স্বীকার করে, তবে একটি সতর্ক বার্তা দিয়ে তদন্তের নিষ্পত্তি করা হয়। পাশাপাশি, শর্তসাপেক্ষে যে বস্তুর ক্ষতি করা হয় তা প্রতিস্থাপন করতে হয়। রোনালদোর ক্ষেত্রেও সেটাই করা হয়েছে।

- Advertisement -spot_img
- Advertisement -

সর্বশেষ

- Advertisement -
- Advertisement -spot_img