২৪ জুন ২০২৪, সোমবার

লাইন্সম্যান যখন হালান্ডের ফ্যান!

- Advertisement -

উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের কোয়ার্টার ফাইনাল, ইতিহাদ স্টেডিয়ামে গত বুধবার ম্যানচেস্টার সিটি ও বরুশিয়া ডর্টমুন্ডের ম্যাচ শেষে মাঠ ছাড়ছিলেন খেলোয়াড়েরা। হঠাৎ দেখা গেল, আর্লিং হালান্ডের পেছনে ছুটছেন একজন ম্যাচ অফিশিয়াল। নরওয়েজিয়ান ফরোয়ার্ড সেই ম্যাচে গোল পান নি, তাতে কি? গোল কি আর ভালোবাসায় পার্থক্য গড়তে পারে?


চলতি মৌসুমে চ্যাম্পিয়নস লিগের সর্বোচ্চ গোলদাতা বলে কথা, আর কি কখনো দেখা হবে তাঁর সাথে? একটু দেখা করে আসি, যদি একটি অটোগ্রাফ পাওয়া যায়! – হ্যাঁ, রোমানিয়ান লাইন্সম্যান অক্টাভিয়ান সোভ্রের ভাবনাটা ছিল এমনই। অদ্ভুত শখ, নামকরা ফুটবলারদের অটোগ্রাফ সংগ্রহ করা। নিতান্ত শখই নয়, এর পেছনে আছে এক মহৎ বাসনা! প্রাপ্ত অটোগ্রাফ নিলামে তোলেন এই ভদ্রলোক। পুরো অর্থই দান করেন নিজ দেশের একটি চ্যারিটিতে, যারা শিশু এবং প্রাপ্তবয়স্ক অটিস্টিকদের নিয়ে কাজ করে।

আর্লিং হালান্ডের অটোগ্রাফ সম্বলিত কার্ড

এসওএস অটিজম বিহর অ্যাসোসিয়েশন প্রেসিডেন্ট সিমোনা জিলিবুত বলেন,

“আপনারা অনেকেই হয়তো জানেন না, সোভ্রে সরাসরি আমাদের অ্যাসোসিয়েশনের সাথে যুক্ত হয়ে ফান্ড সংগ্রহের কাজ করে এবং তিনি বেশ কয়েক বছর যাবত এটি করে আসছেন”

আর্লিং হালান্ড খুশিমনেই নাকি সোভ্রেকে অটোগ্রাফ দিয়েছেন, নিশ্চিত করেছেন, ৪৭ বছর বয়সী এই লাইন্সম্যান। লাল এবং হলুদ, দুটি কার্ডেই হালান্ডের অটোগ্রাফ নেওয়া হয়েছে। তবে বিরূপ প্রতিক্রিয়াও ছিল। অভিযোগ, প্রফেশনালিজম লঙ্ঘন করেছেন তিনি।

সাবেক ম্যানসিটি মিডফিল্ডার ওয়েন হারগ্রিভেসের ভাষ্যমতে,

“তুমি একজন ফ্যান হতে পারো, কিন্তু সব ফুটবলারের সামনে তোমার এই কাজটা করা ঠিক হয় নি”

সাবেক চেলসি ডিফেন্ডার জোলিওন লেসকট বলেছেন, এটি “শিশুসুলভ আচরণ”! আর যাই হোক, এমন মানবিক কোনো কাজের পাছে কেউ দুই একটা বাজে কথা বললে বলুক, তাতে কোনো সমস্যা হওয়ার কথা না।

- Advertisement -spot_img
- Advertisement -

সর্বশেষ

- Advertisement -
- Advertisement -spot_img