৩ মার্চ ২০২৪, রবিবার

আনুষ্ঠানিকভাবে স্থগিত ইউরোপিয়ান সুপার লিগ

- Advertisement -

ইউরোপিয়ান ফুটবলে রীতিমতো ঝড় উঠেছিল। প্রস্তাবিত ইউরোপিয়ান সুপার লিগ নিয়ে বিতর্ক এতটাই বেড়েছিল যে সমর্থক, সাবেক খেলোয়াড়, এমনকি ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন কিংবা ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রঁর  মতো সরকার প্রধানরাও এতে যোগ দিয়েছিলেন।

প্রতিযোগিতাটি আলোর মুখ দেখার আগেই সমর্থকদের চাপের মুখে পড়ে লিগ থেকে নিজেদের নাম প্রত্যাহার করে নিয়েছিল ম্যানচেস্টার সিটি, চেলসি, আর্সেনাল, লিভারপুল, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ও টটেনহ্যাম হটস্পার।

এছাড়াও এসি মিলান ও ইন্টার মিলানও নিজেদের নাম সরিয়ে নিয়েছেন। আসরে না থাকার প্রস্ততি নিচ্ছিলেন স্প্যানিশ জায়ান্ট বার্সেলোনা ও আতলেটিকো মাদ্রিদও। তাই বাধ্য হয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে স্থগিত করা হয়েছে ইউরোপিয়ান সুপার লিগ।

এদিকে ইউরোপের বেশকিছু প্রভাবশালী গণমাধ্যমের বলছে, ইউরোপিয়ান সুপার লিগ কান্ডে প্রতিযোগিতার অন্যতম অংশীদার ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের প্রধান নির্বাহী চেয়ারম্যানের পদ ছাড়ছেন এড উডওয়ার্ড।

ইউরোপের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রণ সংস্থা উয়েফাকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে ইউরোপ শ্রেষ্ঠত্বের নতুন আসর ইউরোপিয়ান সুপার লিগ আয়োজন করার ঘোষণা দেওয়ার ৪৮ ঘন্টার মধ্যে পদত্যাগের ঘোষণা দিলেন তিনি। ২০১৩ সালে রেড ডেভিলদের প্রধান নির্বাহী চেয়ারম্যান হওয়ার ৮ বছরের মাথায় পদ ছাড়ার ঘোষণা দিলেন এড উডওয়ার্ড।

- Advertisement -spot_img
- Advertisement -

সর্বশেষ

- Advertisement -
- Advertisement -spot_img