১ ডিসেম্বর ২০২২, বৃহস্পতিবার

হোয়াইটওয়াশ থেকে বাঁচলো অস্ট্রেলিয়া !

- Advertisement -

ভিরাট কোহলি-পান্ডিয়া জুটির ব্যাটে সিরিজে আরো এক জয়ের আশা দেখেছিলো ভারত। কিন্তু শেষের চাপটা সামলাতে পারেনি এই জুটি। এই জুটি ভাঙ্গার পরই টি-টোয়েন্টি সিরিজে অস্ট্রেলিয়াকে হোয়াইটওয়াশের সম্ভাবনাও মিলিয়ে যায় ভারতের। তৃতীয় এবং শেষ টি-টোয়েন্টিতে অস্ট্রেলিয়ার দেয়া ১৮৭ রানের লক্ষ্যে ভারত তুলতে পারে ৭ উইকেটে ১৭৪ রান। অস্ট্রেলিয়ার জয় ১২ রানে। সিরিজ শেষ হলো ২-১ ব্যবধানে। ওয়ানডে সিরিজের মতো টি-টোয়েন্টির ফলাফলটা একই, শুধু দলের নামটা বদলেছে।

ভারত শতরানের মধ্যে চার উইকেট হারিয়ে বেশ চাপে পড়ে। সেখান থেকে হৃদিক পান্ডিয়াকে নিয়ে অস্ট্রেলিয়ার বোলারদের ভালোই শাসন করেন ভিরাট কোহলি। ১৬তম ওভারটায় এ দু’জন অজিদের বুকে কাঁপুনি ধরিয়ে দেয়। এক ওভারে তিন ছক্কায় ভারতের জয়ের হিসেবটাই মিলে যাচ্ছিলো। কিন্তু পান্ডিয়ার আউটে সে হিসেব এলোমেলো হয়ে যায়। ২০ রানে জাম্পার বলে বাউন্ডারিতে অ্যারন ফিঞ্চের হাতে ক্যাচ দেন পান্ডিয়া। তখনও অস্ট্রেলিয়ার চিন্তা কোহলিকে নিয়ে। কিন্তু একা আর দলকে টানতে পারলেননা ভিরাট কোহলি। ১৯তম ওভারের প্রথম বলে ক্যাচ আউট হন। ৬১ বলে ৮৫ রানের ঝকঝকে ইনিংসটি সাজান তিন ছক্কা ও চারটি চারে। শেষ দিকে শার্দুল ঠাকুরের ৭ বলে ১৭ রানের ইনিংসটি ভারতের পরাজয়ের ব্যবধান কমায়।

তার আগে অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটিংয়ে ম্যাথু ওয়েড খেলেছেন ধারবাহিক ইনিংস। ইনজুরি কাটিয়ে নিয়মিত অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ ফিরেও সুবিধা করতে পারেননি। শূন্যতেই বিদায় নেন এই ওপেনার। ওয়েডকে সঙ্গ দিতে ব্যর্থ হন স্মিথও। পরে ম্যাক্সওয়েলকে নিয়ে ৯০ রানের কার্যকরী পার্টনারশীপ গড়েন ম্যাথু ওয়েড। ওপেনিংয়ে নেমে ওয়েড থামেন ইনিংসের ১০ বল বাকি থাকতে। তার আগে ৮০ রানের ম্যাচ জয়ী ইনিংস জমা করে যান। ৫৩ বলের এই ইনিংসে ছিলো ৭ চার ও দুই ছক্কা। এছাড়া ম্যাক্সওয়েলের ঝড়ো ৫৪ রান অস্ট্রেলিয়াকে দেয় লড়াইয়ের পুঁজি।

অস্ট্রেলিয়া-ভারতের চার ম্যাচ সিরিজের প্রথম টেস্ট শুরু হবে ১৭ ডিসেম্বর।

 

স্কোর : অস্ট্রেলিয়া ১৮৬/৫ ( ওয়েড ৮০, স্মিথ ২৪, ম্যাক্সওয়েল ৫৪) ওয়াশিংটন ২/৩৪

ভারত ১৭৪/৭  ( কোহলি ৮৫, ধাওয়ান ২৮, পান্ডিয়া ২০) মিচেল সোয়েপসন ৩/২৩

- Advertisement -spot_img
- Advertisement -

সর্বশেষ

- Advertisement -
- Advertisement -spot_img